মিয়ানমারে মুসলিম রোহিঙ্গাদের জায়গায় তৈরি হচ্ছে বৌদ্ধ গ্রাম

রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্যাতন করে পালিয়ে যেতে বাধ্য করার পর তাদের জায়গায় বৌদ্ধ রাখাইনদের জন্য নতুন করে গ্রাম তৈরি করা হচ্ছে। বার্তা সংস্থা এএফপি এ খবর জানিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, রাখাইনকে রোহিঙ্গা মুসলিম মুক্ত করতেই এ কৌশল হাতে নিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী।

জানা গেছে, প্রাণ ভয়ে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের বসত ভিটায় অগ্নিসংযোগ ও বুলডোজার চালিয়ে গুড়িয়ে দেয়ার পর ওই স্থানে সরকারি সাহয্যে এবং কিছু বেসরকারি উদ্যোগে গরিব রাখাইনদের জন্য ঘর তৈরি করা হচ্ছে। এরই মধ্যে কো তান কাউক গ্রামে নতুন তৈরি করা ঘর বাড়িতে থাকতে শুরু করেছে বৌদ্ধ রাখাইনরা।

এ বিষয়ে রাখাইন রাজ্যের সাংসদ উ হ্লা স বলেন, ‘এই এলাকা (রাখাইন) মুসলিমদের দ্বারা প্রভাবিত ছিল। তারা যেহেতু এখন এ এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে তাই আমরা এখানে দরিদ্র রাখাইনদের থাকার ব্যবস্থা করছি।’

ডয়েচে ভেলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গরিব বৌদ্ধ রাখাইনদের জন্য তৈরি প্রতিটি ঘর তৈরিতে মাত্র সাড়ে ৪০০ মার্কিন ডলার খরচ করা হচ্ছে। এরই মধ্যে ৬৪টি ঘর তোলা হয়েছে এবং সেসব ঘরে ২৫০ জন রাখাইন বসবাসও করতে শুরু করে দিয়েছেন।

সদ্য ঘর তুলে ওই এলাকায় বসবাস শুরুকারীদের একজন চিট সাইন ইয়েইন। তিনি বললেন, ‘আমরা এর আগে এখানে ছিলাম না। এখানে আসার কথা ভাবতেও পারি নাই। কারণ আমরা আসলে ওই কালাদের (রোহিঙ্গা) ভয় পেতাম। এখন ওরা (রোহিঙ্গা) না থাকায় আমরা আমাদের আত্মীয়দের সঙ্গে একত্রে থাকতে পারছি।’

মুসলিম রোহিঙ্গাদের উচ্ছেদ করে বৌদ্ধ রাখাইনদের জন্য ঘর নির্মাণের বিষয়ে বিশ্লেষকরা মনে করেন, মূলত মুসলিম মুক্ত রাখাইন রাজ্য গড়ে তোলার জন্যই সেনাবাহিনী এই উদ্যোগ নিয়েছে। তারা নিজেরা অর্থ খরচ করে আবাসন তৈরি করে দিচ্ছে।

Leave a Comment