দুই সেট প্রশ্নে আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষা: প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে ৮ পদক্ষেপ

প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে আলাদা প্রশ্নে পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আগামী ২ এপ্রিল শুরু হওয়া এইচএসসি পরীক্ষায় এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। সে অনুযায়ী সারা দেশে দুই সেট প্রশ্নে পরীক্ষা হবে।

যাতে তার মাধ্যমে মাঠ প্রশাসন এ ব্যাপারে একটি নির্দেশনা পেতে পারে। বৈঠকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে ৮ দফা পদক্ষেপের কথা অবহিত করা হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, দুই সেট প্রশ্ন ছাপানোর কাজ শেষ হলে তৃতীয় সেট ছাপানো শুরু হবে।

এক্ষেত্রে ৪ বোর্ডে একটি এবং অপর ৪ বোর্ডে বাকি সেট প্রশ্নে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে লটারি করে বোর্ড ও সেট নম্বর ঠিক করা হবে। সকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের সঙ্গে বৈঠক করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন। বৈঠকে প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে মাঠ প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আগ্রহের কথা জানানো হয়। আট বিভাগীয় কমিশন কার্যালয়ে ১৯ মার্চ মাঠ প্রশাসনের বৈঠকের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারদের আমন্ত্রণ জানানো হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একজন করে অতিরিক্ত সচিব ওই বৈঠকে যোগ দেবেন।

জানা গেছে, বৈঠকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে ৮ দফা পদক্ষেপের কথা অবহিত করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে- প্রশ্নপত্রের প্যাকেটে সিকিউরিটি ট্যাপ লাগানো (বর্তমানে সিলগালা করা হয় এবং তা অক্ষত কি না তা প্রমাণের ব্যবস্থা নেই)। ফাঁস রোধে প্রশ্নভরা খামটি আরেকটি খামে ভরে তাতে বিশেষ সিকিউরিটি ট্যাপ লাগানো হবে।

দুই সেট প্রশ্নই কেন্দ্রে পাঠানো হবে। কোন সেটে পরীক্ষা হবে তা জানানো হবে ছাত্রছাত্রীরা পরীক্ষার হলে প্রবেশের পর এবং পরীক্ষা শুরুর ১৫ মিনিট আগে। কোনো অজুহাতেই পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিটের মধ্যে কাউকে পরীক্ষার হলে ঢুকতে দেয়া হবে না। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে নিজের সিটে বসতে হবে।

জেলা ও উপজেলার ট্রেজারি থেকে নির্ধারিত তিন সদস্যের কমিটি প্রশ্ন সংগ্রহ করবে। তিনজনের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। কোনো কারণে একজনের অনুপস্থিত থাকতে হলে আগে জেলা প্রশাসককে জানাতে হবে।

Leave a Comment